আজ রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন দিন
জাতীয়, আঞ্চলিক, স্থানীয় পত্রিকাসহ অনলাইন পোর্টালে যে কোন ধরনের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন। মেসার্স রুকাইয়া এড ফার্ম -01711 211241

অভিবাসন প্রত্যাশীদের দুঃসংবাদ দিল যুক্তরাজ্য

  • রিপোর্টার
  • আপডেট সময়: ০২:১০:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪
  • ৩৩ বার পড়া হয়েছে

অভিবাসীদের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে এবার পারিবারিক ভিসার শর্ত কঠোর করেছে যুক্তরাজ্য৷ বাড়ানো হয়েছে ন্যূনতম আয়ের সীমা৷ অভিবাসন নিয়ন্ত্রণে সরকারের নেওয়া পরিকল্পনার অংশ হিসাবে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ৷ শুক্রবার (১২ এপ্রিল) অভিবাসীদের নিয়ে কাজ করা অনলাইন সংবাদমাধ্যম ইনফোমাইগ্রেন্টসের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, এ বছরের ৫ এপ্রিল থেকে কোনো অভিবাসী যদি তার পরিবারের কোনো সদস্যকে যুক্তরাজ্যে নিয়ে আসতে চান তাহলে তার ন্যূনতম আয় হতে হবে ২৯ হাজার পাউন্ড৷ এই আয় সীমা আগে ছিল ১৮ হাজার ৬০০ পাউন্ড৷ আগামী বছর এটি বাড়িয়ে ৩৮ হাজার ৭০০ পাউন্ডে উন্নীত করা হতে পারে৷

এই সিদ্ধান্ত দেশটির প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকের অভিবাসন নিয়ন্ত্রণ পরিকল্পনার অংশ৷ দেশটির করদাতার বোঝা কমাতেই অভিবাসনকে নিয়ন্ত্রণ করার কথা জানিয়েছেন তিনি৷ সাম্প্রতিক বছরগুলোতে নিয়মিত এবং অনিয়মিত মিলিয়ে রেকর্ডসংখ্যক অভিবাসী এসেছেন যুক্তরাজ্যে৷ চলতি বছর দেশটিতে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে৷ ভোটের মাঠে অভিবাসন অন্যতম প্রধান ইস্যুতে পরিণত হয়েছে৷ অভিবাসন নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার কারণে জনমত জরিপে পিছিয়ে আছে ক্ষমতাসীন রক্ষণশীলেরা৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেমস ক্লেভারলি বলেছেন, ‘গণ অভিবাসন একটি ঊর্ধ্ব সীমায় পৌঁছে গেছে৷ ফলে, এমন কোনো সহজ সমাধান বা সহজ সিদ্ধান্ত নেই, যা এই সংখ্যাটিকে ব্রিটিশ জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য মাত্রায় কমিয়ে দিতে পারে৷’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা অদক্ষদের সংখ্যা কমানোর চেষ্টা করছি, যাতে ব্রিটিশ কর্মীদের এবং তাদের মজুরি রক্ষা করা যায়৷ আমরা চাই, যেসব অভিবাসী তাদের পরিবারকে যুক্তরাজ্যে নিয়ে আসবেন তাদের কারণে যেন ব্রিটিশ নাগরিকদের ওপর করের বোঝা চাপাতে না হয়৷’ ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, অভিবাসীদের পরিবারগুলো যেন যুক্তরাজ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ থাকে, কারও ওপর নির্ভর করতে না হয়, তা নিশ্চিত করতেই আয় সীমা বাড়ানো হয়েছে৷ কর্মক্ষেত্র থেকে অর্জিত আয় আর সঞ্চয় মিলিয়েও এই শর্ত পূরণের সুযোগ থাকবে অভিবাসীদের৷ দক্ষ কর্মী হিসেবে ভিসা পাওয়ার শর্তকেও কঠোর করেছে যুক্তরাজ্য৷ গত ডিসেম্বরে দক্ষ কর্মী হিসেবে যুক্তরাজ্যে আসার ন্যূনতম বেতনের হার ৪৭ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে সরকার৷

অভিবাসন নিয়ন্ত্রণের অংশ হিসাবে শিক্ষার্থীদের জন্য কঠোর নীতি এবং ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের সেবাগ্রহীতা বিদেশিদের সারচার্জ বাড়িয়ে করা হয়েছে ৬৬ শতাংশ৷ জেমস ক্লেভারলি ওই সময় বলেছেন, যুক্তরাজ্যের নিট মাইগ্রেশন কমাতেই এসব উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে৷ ২০২২ সালে যুক্তরাজ্যে নিট মাইগ্রেশন রেকর্ডসংখ্যক সাত লাখ ৪৫ হাজারে উন্নীত হয়েছে৷ অফিস ফর ন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিকস (ওএনএস) জানিয়েছেন, ২০২২ সালে নিট মাইগ্রেশন (ব্রিটেন ছেড়ে যাওয়া মানুষ এবং দেশটিতে নতুন করে আসা মানুষের সংখ্যার পার্থক্য) ধারণার চেয়ে অনেক বেশি৷ ওএনএসের ধারণা ছিল, নিট মাইগ্রেশন হবে ছয় লাখ ছয় হাজার৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত সংখ্যাটি এক লাখ ৩৯ হাজার বেড়ে উন্নীত হয়েছে সাত লাখ ৪৫ হাজারে৷ এর আগের বছর অর্থাৎ ২০২১ সালে নিট মাইগ্রেশন ছিল চার লাখ ৮৮ হাজার৷

ট্যাগস:

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

অভিবাসন প্রত্যাশীদের দুঃসংবাদ দিল যুক্তরাজ্য

আপডেট সময়: ০২:১০:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪

অভিবাসীদের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে এবার পারিবারিক ভিসার শর্ত কঠোর করেছে যুক্তরাজ্য৷ বাড়ানো হয়েছে ন্যূনতম আয়ের সীমা৷ অভিবাসন নিয়ন্ত্রণে সরকারের নেওয়া পরিকল্পনার অংশ হিসাবে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ৷ শুক্রবার (১২ এপ্রিল) অভিবাসীদের নিয়ে কাজ করা অনলাইন সংবাদমাধ্যম ইনফোমাইগ্রেন্টসের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, এ বছরের ৫ এপ্রিল থেকে কোনো অভিবাসী যদি তার পরিবারের কোনো সদস্যকে যুক্তরাজ্যে নিয়ে আসতে চান তাহলে তার ন্যূনতম আয় হতে হবে ২৯ হাজার পাউন্ড৷ এই আয় সীমা আগে ছিল ১৮ হাজার ৬০০ পাউন্ড৷ আগামী বছর এটি বাড়িয়ে ৩৮ হাজার ৭০০ পাউন্ডে উন্নীত করা হতে পারে৷

এই সিদ্ধান্ত দেশটির প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকের অভিবাসন নিয়ন্ত্রণ পরিকল্পনার অংশ৷ দেশটির করদাতার বোঝা কমাতেই অভিবাসনকে নিয়ন্ত্রণ করার কথা জানিয়েছেন তিনি৷ সাম্প্রতিক বছরগুলোতে নিয়মিত এবং অনিয়মিত মিলিয়ে রেকর্ডসংখ্যক অভিবাসী এসেছেন যুক্তরাজ্যে৷ চলতি বছর দেশটিতে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে৷ ভোটের মাঠে অভিবাসন অন্যতম প্রধান ইস্যুতে পরিণত হয়েছে৷ অভিবাসন নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার কারণে জনমত জরিপে পিছিয়ে আছে ক্ষমতাসীন রক্ষণশীলেরা৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেমস ক্লেভারলি বলেছেন, ‘গণ অভিবাসন একটি ঊর্ধ্ব সীমায় পৌঁছে গেছে৷ ফলে, এমন কোনো সহজ সমাধান বা সহজ সিদ্ধান্ত নেই, যা এই সংখ্যাটিকে ব্রিটিশ জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য মাত্রায় কমিয়ে দিতে পারে৷’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা অদক্ষদের সংখ্যা কমানোর চেষ্টা করছি, যাতে ব্রিটিশ কর্মীদের এবং তাদের মজুরি রক্ষা করা যায়৷ আমরা চাই, যেসব অভিবাসী তাদের পরিবারকে যুক্তরাজ্যে নিয়ে আসবেন তাদের কারণে যেন ব্রিটিশ নাগরিকদের ওপর করের বোঝা চাপাতে না হয়৷’ ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, অভিবাসীদের পরিবারগুলো যেন যুক্তরাজ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ থাকে, কারও ওপর নির্ভর করতে না হয়, তা নিশ্চিত করতেই আয় সীমা বাড়ানো হয়েছে৷ কর্মক্ষেত্র থেকে অর্জিত আয় আর সঞ্চয় মিলিয়েও এই শর্ত পূরণের সুযোগ থাকবে অভিবাসীদের৷ দক্ষ কর্মী হিসেবে ভিসা পাওয়ার শর্তকেও কঠোর করেছে যুক্তরাজ্য৷ গত ডিসেম্বরে দক্ষ কর্মী হিসেবে যুক্তরাজ্যে আসার ন্যূনতম বেতনের হার ৪৭ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে সরকার৷

অভিবাসন নিয়ন্ত্রণের অংশ হিসাবে শিক্ষার্থীদের জন্য কঠোর নীতি এবং ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের সেবাগ্রহীতা বিদেশিদের সারচার্জ বাড়িয়ে করা হয়েছে ৬৬ শতাংশ৷ জেমস ক্লেভারলি ওই সময় বলেছেন, যুক্তরাজ্যের নিট মাইগ্রেশন কমাতেই এসব উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে৷ ২০২২ সালে যুক্তরাজ্যে নিট মাইগ্রেশন রেকর্ডসংখ্যক সাত লাখ ৪৫ হাজারে উন্নীত হয়েছে৷ অফিস ফর ন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিকস (ওএনএস) জানিয়েছেন, ২০২২ সালে নিট মাইগ্রেশন (ব্রিটেন ছেড়ে যাওয়া মানুষ এবং দেশটিতে নতুন করে আসা মানুষের সংখ্যার পার্থক্য) ধারণার চেয়ে অনেক বেশি৷ ওএনএসের ধারণা ছিল, নিট মাইগ্রেশন হবে ছয় লাখ ছয় হাজার৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত সংখ্যাটি এক লাখ ৩৯ হাজার বেড়ে উন্নীত হয়েছে সাত লাখ ৪৫ হাজারে৷ এর আগের বছর অর্থাৎ ২০২১ সালে নিট মাইগ্রেশন ছিল চার লাখ ৮৮ হাজার৷