আজ শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন দিন
জাতীয়, আঞ্চলিক, স্থানীয় পত্রিকাসহ অনলাইন পোর্টালে যে কোন ধরনের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন। মেসার্স রুকাইয়া এড ফার্ম -01711 211241

‘সাইবার ক্রাইম সিনেমায় প্রধান চরিত্র হতে চাই’

  • রিপোর্টার
  • আপডেট সময়: ০২:২৭:১৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই ২০২৪
  • ২২ বার পড়া হয়েছে

আষাঢ় ফুরিয়ে এলো, তবু রোদের তেজ কমলো না। এরই মধ্যে ঘেমে-নেয়ে একাকার হয়ে রাজধানীর একটি রেস্তোরাঁর রুফটপে এলেন এই সময়ের মডেল সাবরিন। চুল খোলা। তার হাতের উল্কি যে কারও দৃষ্টি টেনে নেয়। পুরো নাম সাবরিন ইসলাম। নির্ধারিত সময়ের মিনিট দশেক দেরিতে আসায় ক্ষমা চেয়ে বসে পড়লেন সামনের চেয়ারে। কালবেলার ক্যামেরা তখন তিন পায়ায় ভর করে রেডি হচ্ছে। বেয়ারাকে দুটি লাচ্ছি অর্ডার করতেই সাবরিন বললেন, আমার তো আমের জুস পছন্দ। মৃদু বাতাসে খানিকক্ষণ জিরিয়ে নিয়ে কথার ঝাঁপি উপুড় করে দিলেন এ সম্ভাবনাময়ী। বললেন, আমি কিন্তু নাটকও করেছি। মানে অভিনেত্রীও বলা চলে। শুধু নাটক কেন, মিউজিক ভিডিওতেও দেখা গেছে সাবরিনকে। তাও আবার তাহসান খানের মতো নামধারী তারকার সঙ্গে। সাবরিনের ক্যারিয়ারের শুরুটা ২০১২ সালে। প্রথম দিকে বিভিন্ন পণ্যের মডেল হতেন। এরপর এডুকেশনাল ইভেন্টগুলো করতে করতেই সুযোগ আসে শোবিজে কাজের। তবে ক্যামেরার সামনে নয়, পেছনে। কাস্টিং, কস্টিউম—এসব দেখভালের দায়িত্ব চাপে তার কাঁধে। পথচলার ফিরিস্তি দিতে দিতে সাবরিন বললেন, অমিতাভ রেজার প্রযোজনা কোম্পানি হাফস্টপ ডাউনে ক্যামেরার পেছনে কাজ করতাম। প্রি-প্রোডাকশনের কাজ। শুটিংয়ে তারকাদের সবকিছু ঠিকঠাক আছে কি না, খেয়াল রাখতাম।

ক্যামেরার পেছন থেকে সামনে আসার গল্পটা বলার আগে নিজের কিছুটা প্রশংসা করে নিলেন সাবরিন। বললেন, আমি দেখতে ভালো। বেশ ফটোজেনিক। সেই জয়াগা থেকে সবাই বলত—তুমি শুট করো, তোমাকে ভালো লাগবে দেখতে। ক্যামেরা ফেস ভালো তোমার। এসব বলে উচ্চৈঃস্বরে হেসে ফেললেন সাবরিন। নাটকে সাবরিনের অভিষেক হয় নির্মাতা আদনান আল রাজিবের মাধ্যমে। ‘মিডল ক্লাস সেন্টিমেন্ট’ নাটকে একটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। সেটি ছিল ঈদের নাটক। সালটা ছিল ২০১৪। এরপরই তিনটি মিউজিক ভিডিওতে কাজ করেন সাবরিন, যেগুলোর একটিতে তাকে দেখা গেছে তাহসানের সঙ্গে, ‘কে তুমি’ গানে। বর্তমানে নাটক নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও নিজেকে ঝালিয়ে নিচ্ছেন বড় পর্দার জন্য। তবে রংচঙে নায়িকা নয়, তিনি হতে চান ভিলেন। বললেন, সাইবার ক্রাইম ঘরানার সিনেমায় প্রধান চরিত্র হতে চাই। নায়িকাদের মতো সেজেগুজে অভিনয়ের ইচ্ছা নেই। সিনেমায় ফাইট করতে চাই। গোয়েন্দা চরিত্রে কাজের ইচ্ছা মনে পুষি।

সাবরিন আরও বলেন, অ্যাকটিংয়ে আমার কোনো স্কুলিং নেই। তাই বড় পর্দায় অভিষেকের আগে যদি ছোট পর্দায় কাজ করে নিজেকে রেডি করতে পারি, তাহলে অবশ্যই বড় পর্দায় আসব। আমার ইচ্ছা নাটক ও ওয়েব সিরিজে কাজ করা। সিনেমায় অভিনয়ের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করছি। বাসায় অভিনয় অনুশীলন করি। নিজেকে কোন লুকসে ভালো লাগবে, কোন ক্যারেকটার ক্যারি করতে পারব, সেগুলো ট্রাই করছি নিজে নিজে। সিনেমার অফার পেলে আগে ভেবে দেখব যে সেই চরিত্রে অভিনয় করতে পারব কি না। অভিষেকেই নিজেকে খুব ভালোভাবে রিপ্রেজেন্ট করতে চাই। সেই আত্মবিশ্বাস যদি আমার না থাকে, তাহলে যখনই অভিনয়ের প্রস্তাব আসুক, হয়তো রাজি হব না। বর্তমানে নাটকে ডাক পাচ্ছেন সাবরিন। সম্প্রতি শেষ করেছেন একটি মিউজিক ভিডিওর কাজ। প্রবাসীদের নিয়ে একটি গান তৈরি করেছেন সংগীতশিল্পী পথিক নবী। সেখানেই কাজ করেছেন তিনি। মাদারীপুরের মেয়ে সাবরিনের শৈশব কেটেছে চট্টগ্রামে। উচ্চশিক্ষা নিয়েছেন ভারতে। ইথিকাল হ্যাকিংয়েও দক্ষ উদীয়মান এ অভিনেত্রী।

ট্যাগস:

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

‘সাইবার ক্রাইম সিনেমায় প্রধান চরিত্র হতে চাই’

আপডেট সময়: ০২:২৭:১৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই ২০২৪

আষাঢ় ফুরিয়ে এলো, তবু রোদের তেজ কমলো না। এরই মধ্যে ঘেমে-নেয়ে একাকার হয়ে রাজধানীর একটি রেস্তোরাঁর রুফটপে এলেন এই সময়ের মডেল সাবরিন। চুল খোলা। তার হাতের উল্কি যে কারও দৃষ্টি টেনে নেয়। পুরো নাম সাবরিন ইসলাম। নির্ধারিত সময়ের মিনিট দশেক দেরিতে আসায় ক্ষমা চেয়ে বসে পড়লেন সামনের চেয়ারে। কালবেলার ক্যামেরা তখন তিন পায়ায় ভর করে রেডি হচ্ছে। বেয়ারাকে দুটি লাচ্ছি অর্ডার করতেই সাবরিন বললেন, আমার তো আমের জুস পছন্দ। মৃদু বাতাসে খানিকক্ষণ জিরিয়ে নিয়ে কথার ঝাঁপি উপুড় করে দিলেন এ সম্ভাবনাময়ী। বললেন, আমি কিন্তু নাটকও করেছি। মানে অভিনেত্রীও বলা চলে। শুধু নাটক কেন, মিউজিক ভিডিওতেও দেখা গেছে সাবরিনকে। তাও আবার তাহসান খানের মতো নামধারী তারকার সঙ্গে। সাবরিনের ক্যারিয়ারের শুরুটা ২০১২ সালে। প্রথম দিকে বিভিন্ন পণ্যের মডেল হতেন। এরপর এডুকেশনাল ইভেন্টগুলো করতে করতেই সুযোগ আসে শোবিজে কাজের। তবে ক্যামেরার সামনে নয়, পেছনে। কাস্টিং, কস্টিউম—এসব দেখভালের দায়িত্ব চাপে তার কাঁধে। পথচলার ফিরিস্তি দিতে দিতে সাবরিন বললেন, অমিতাভ রেজার প্রযোজনা কোম্পানি হাফস্টপ ডাউনে ক্যামেরার পেছনে কাজ করতাম। প্রি-প্রোডাকশনের কাজ। শুটিংয়ে তারকাদের সবকিছু ঠিকঠাক আছে কি না, খেয়াল রাখতাম।

ক্যামেরার পেছন থেকে সামনে আসার গল্পটা বলার আগে নিজের কিছুটা প্রশংসা করে নিলেন সাবরিন। বললেন, আমি দেখতে ভালো। বেশ ফটোজেনিক। সেই জয়াগা থেকে সবাই বলত—তুমি শুট করো, তোমাকে ভালো লাগবে দেখতে। ক্যামেরা ফেস ভালো তোমার। এসব বলে উচ্চৈঃস্বরে হেসে ফেললেন সাবরিন। নাটকে সাবরিনের অভিষেক হয় নির্মাতা আদনান আল রাজিবের মাধ্যমে। ‘মিডল ক্লাস সেন্টিমেন্ট’ নাটকে একটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। সেটি ছিল ঈদের নাটক। সালটা ছিল ২০১৪। এরপরই তিনটি মিউজিক ভিডিওতে কাজ করেন সাবরিন, যেগুলোর একটিতে তাকে দেখা গেছে তাহসানের সঙ্গে, ‘কে তুমি’ গানে। বর্তমানে নাটক নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও নিজেকে ঝালিয়ে নিচ্ছেন বড় পর্দার জন্য। তবে রংচঙে নায়িকা নয়, তিনি হতে চান ভিলেন। বললেন, সাইবার ক্রাইম ঘরানার সিনেমায় প্রধান চরিত্র হতে চাই। নায়িকাদের মতো সেজেগুজে অভিনয়ের ইচ্ছা নেই। সিনেমায় ফাইট করতে চাই। গোয়েন্দা চরিত্রে কাজের ইচ্ছা মনে পুষি।

সাবরিন আরও বলেন, অ্যাকটিংয়ে আমার কোনো স্কুলিং নেই। তাই বড় পর্দায় অভিষেকের আগে যদি ছোট পর্দায় কাজ করে নিজেকে রেডি করতে পারি, তাহলে অবশ্যই বড় পর্দায় আসব। আমার ইচ্ছা নাটক ও ওয়েব সিরিজে কাজ করা। সিনেমায় অভিনয়ের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করছি। বাসায় অভিনয় অনুশীলন করি। নিজেকে কোন লুকসে ভালো লাগবে, কোন ক্যারেকটার ক্যারি করতে পারব, সেগুলো ট্রাই করছি নিজে নিজে। সিনেমার অফার পেলে আগে ভেবে দেখব যে সেই চরিত্রে অভিনয় করতে পারব কি না। অভিষেকেই নিজেকে খুব ভালোভাবে রিপ্রেজেন্ট করতে চাই। সেই আত্মবিশ্বাস যদি আমার না থাকে, তাহলে যখনই অভিনয়ের প্রস্তাব আসুক, হয়তো রাজি হব না। বর্তমানে নাটকে ডাক পাচ্ছেন সাবরিন। সম্প্রতি শেষ করেছেন একটি মিউজিক ভিডিওর কাজ। প্রবাসীদের নিয়ে একটি গান তৈরি করেছেন সংগীতশিল্পী পথিক নবী। সেখানেই কাজ করেছেন তিনি। মাদারীপুরের মেয়ে সাবরিনের শৈশব কেটেছে চট্টগ্রামে। উচ্চশিক্ষা নিয়েছেন ভারতে। ইথিকাল হ্যাকিংয়েও দক্ষ উদীয়মান এ অভিনেত্রী।