আজ শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন দিন
জাতীয়, আঞ্চলিক, স্থানীয় পত্রিকাসহ অনলাইন পোর্টালে যে কোন ধরনের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন। মেসার্স রুকাইয়া এড ফার্ম -01711 211241

বেনজীরের সেই ডুপ্লেক্সে যা মিলল

  • রিপোর্টার
  • আপডেট সময়: ১২:৩৬:০৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জুলাই ২০২৪
  • ২০ বার পড়া হয়েছে

অবশেষে পুলিশের সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদের রূপগঞ্জের আনন্দ হাউজিংয়ে থাকা প্রায় ২৪ কাঠার ডুপ্লেক্স বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে দুদক ও নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় হাইকোর্টের আদেশে বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে বাড়িতে তল্লাশি চালানো হয়। তল্লাশি শেষে পরিচালনা কর্মকর্তারা জানান, জব্দ তালিকা করা হয়েছে। একটি পরিবারের সাধারণ প্রয়োজনীয় আসবাবপত্রের চেয়ে বেশি কিছু পাওয়া যায়নি।

এদিকে বাড়িটি ঘিরে জবর দখলের শিকার স্থানীয় জমি মালিক ও বাসিন্দাদের মাঝে স্বস্তি ফিরেছে। এ সময় সরকারকে ধন্যবাদ জানান তারা। তবে তল্লাশি চলাকালে গণমাধ্যম কর্মীদের ভিতরে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। এর আগে দুদকের নারায়ণগঞ্জের সমন্বিত কার্যালয়ের উপপরিচলাক মঈনুল হাসান রওশনী গত ৬ জুলাই দুপুরে রূপগঞ্জের আনন্দ হাউজিং সোসাইটি এলাকায় অবস্থিত ওই বাড়িতে আদালতের নির্দেশে সাইনবোর্ড টাঙিয়ে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিজ্ঞপ্তি সাঁটানো হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন দুদকের উপপরিচালক মঈনুল হাসান রওসানী, নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব শফিকুল আলম, রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও আহসান মাহমুদ রাসেল, উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি সিমন সরকারসহ আরও অনেকে।

অভিযান পরিচালনা শেষে নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব শফিকুল আলম বলেন, আদালতের নির্দেশক্রমে গত ৬ জুলাই পুলিশের সাবেক আইজিপি বেনজীর আহম্মেদের বাড়িটি জব্দ করা হয়। বাড়িটির দরজাগুলোতে আধুনিক সিকিউরিটি সিস্টেম (তালা) থাকায় সেদিন মালামাল জব্দ করা যায়নি। আজ সেই বাড়িটির দরজা খুলে ভিতরে প্রবেশ করা হয়। এসময় তার বাড়িতে থাকা বিভিন্ন মালামাল জব্দ করা হয়েছে। মালামালের বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, একটি পরিবারের প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র ছাড়া ওই বাড়িতে তেমন কিছু ছিল না।

দুদকের উপপরিচালক মঈনুল হাসান রউশনী বলেন, দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত কর্তৃক বেনজীর আহম্মেদের বাড়িতে জব্দ করার নির্দেশ দেওয়া হয়।এরই পরিপ্রেক্ষিতে জব্দ বাড়িটির মালামাল জব্দ করা হয়েছে। আদালতে মালামালের জব্দ তালিকা দেওয়া হবে। উল্লেখ্য, দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ১২ জুন আদালত তৃতীয় দফায় বেনজীরের আরও বিপুল পরিমাণ সম্পদ জব্দ করেছেন। সে তালিকায় এ বাংলোটিও রয়েছে। এরপর বাড়িটি দেখভালের জন্য জেলা প্রশাসককে রিসিভার নিয়োগ দেন আদালত। বাংলোটির মূল্য প্রায় ১০ কোটি টাকা।

ট্যাগস:

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

বেনজীরের সেই ডুপ্লেক্সে যা মিলল

আপডেট সময়: ১২:৩৬:০৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জুলাই ২০২৪

অবশেষে পুলিশের সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদের রূপগঞ্জের আনন্দ হাউজিংয়ে থাকা প্রায় ২৪ কাঠার ডুপ্লেক্স বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে দুদক ও নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় হাইকোর্টের আদেশে বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে বাড়িতে তল্লাশি চালানো হয়। তল্লাশি শেষে পরিচালনা কর্মকর্তারা জানান, জব্দ তালিকা করা হয়েছে। একটি পরিবারের সাধারণ প্রয়োজনীয় আসবাবপত্রের চেয়ে বেশি কিছু পাওয়া যায়নি।

এদিকে বাড়িটি ঘিরে জবর দখলের শিকার স্থানীয় জমি মালিক ও বাসিন্দাদের মাঝে স্বস্তি ফিরেছে। এ সময় সরকারকে ধন্যবাদ জানান তারা। তবে তল্লাশি চলাকালে গণমাধ্যম কর্মীদের ভিতরে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। এর আগে দুদকের নারায়ণগঞ্জের সমন্বিত কার্যালয়ের উপপরিচলাক মঈনুল হাসান রওশনী গত ৬ জুলাই দুপুরে রূপগঞ্জের আনন্দ হাউজিং সোসাইটি এলাকায় অবস্থিত ওই বাড়িতে আদালতের নির্দেশে সাইনবোর্ড টাঙিয়ে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিজ্ঞপ্তি সাঁটানো হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন দুদকের উপপরিচালক মঈনুল হাসান রওসানী, নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব শফিকুল আলম, রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও আহসান মাহমুদ রাসেল, উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি সিমন সরকারসহ আরও অনেকে।

অভিযান পরিচালনা শেষে নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব শফিকুল আলম বলেন, আদালতের নির্দেশক্রমে গত ৬ জুলাই পুলিশের সাবেক আইজিপি বেনজীর আহম্মেদের বাড়িটি জব্দ করা হয়। বাড়িটির দরজাগুলোতে আধুনিক সিকিউরিটি সিস্টেম (তালা) থাকায় সেদিন মালামাল জব্দ করা যায়নি। আজ সেই বাড়িটির দরজা খুলে ভিতরে প্রবেশ করা হয়। এসময় তার বাড়িতে থাকা বিভিন্ন মালামাল জব্দ করা হয়েছে। মালামালের বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, একটি পরিবারের প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র ছাড়া ওই বাড়িতে তেমন কিছু ছিল না।

দুদকের উপপরিচালক মঈনুল হাসান রউশনী বলেন, দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত কর্তৃক বেনজীর আহম্মেদের বাড়িতে জব্দ করার নির্দেশ দেওয়া হয়।এরই পরিপ্রেক্ষিতে জব্দ বাড়িটির মালামাল জব্দ করা হয়েছে। আদালতে মালামালের জব্দ তালিকা দেওয়া হবে। উল্লেখ্য, দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ১২ জুন আদালত তৃতীয় দফায় বেনজীরের আরও বিপুল পরিমাণ সম্পদ জব্দ করেছেন। সে তালিকায় এ বাংলোটিও রয়েছে। এরপর বাড়িটি দেখভালের জন্য জেলা প্রশাসককে রিসিভার নিয়োগ দেন আদালত। বাংলোটির মূল্য প্রায় ১০ কোটি টাকা।