আজ রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম:
Logo সাতক্ষীরা থানায় হামলার চেষ্টা, পুলিশের লাঠিচার্জ ও ফাঁকা গুলি Logo যশোরে ডিবি পুলিশের অভিযানে পিস্তলসহ যুবক আটক Logo মোটরসাইকেল নিয়ে দ্বন্দ্বে ঘরে ঢুকে যুবককে গুলি করে হত্যা, গ্রেপ্তার ২ Logo সাতক্ষীরায় কোটা বিরোধীদের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া Logo কোটা বহালে হাইকোর্টের রায় বাতিল চেয়ে লিভ টু আপিল Logo সাতক্ষীরায় কোটা আন্দলনকারী ও ছাত্রলীগ মুখোমুখি অবস্থানে Logo বেনা‌পো‌লে ঘোষণা বহির্ভূত ১৫ হাজার ৭৫০ কেজি সালফিউরিক এসিড জব্দ Logo ‘বাবাকে হত্যা করেছি আমাকে গ্রেপ্তার করুন’ Logo সাতক্ষীরায় দুই রোহিঙ্গা নারীসহ মানব পাচারকারী আটক Logo প্রশ্নফাঁসে জড়িত কুমিল্লার সোহেলের বোন শিক্ষা অফিসার, ভাবি শিক্ষক
বিজ্ঞাপন দিন
জাতীয়, আঞ্চলিক, স্থানীয় পত্রিকাসহ অনলাইন পোর্টালে যে কোন ধরনের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন। মেসার্স রুকাইয়া এড ফার্ম -01711 211241

মামলার তদন্তে গিয়ে ধর্ষণ, পুলিশ কর্মকর্তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

  • রিপোর্টার
  • আপডেট সময়: ০১:২৩:২১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪
  • ৪৯ বার পড়া হয়েছে

সুনামগঞ্জের ছাতকে কর্মরত থাকতে একটি মামলার তদন্ত করতে গিয়ে এক পক্ষের নারীকে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেন এক পুলিশ কর্মকর্তা। পরে ভুক্তভোগী নারী আদালতে মামলা করলে চাকরি খোয়ান ওই পুলিশ কর্মকর্তা। বৃহস্পতিবার (৩০ মে) প্রায় ১২ বছর মামলার বিচারকাজ শেষে ওই মামলার রায় হয়েছে। রায়ে আজিজুল ইসলাম চৌধুরীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এজাহারে নির্যাতিত ওই মহিলা উল্লেখ করেন, আমার পৈতৃক জায়গা জমির বিরোধ নিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা আজিজুল ইসলাম চৌধুরী। সেই সুবাদে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিভিন্ন সময় একাধিকবার ধর্ষণ করে। পরে পুলিশ কর্মকর্তা আমার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করলে আমি অসহায় বোধ করি।

২০১১ সালের ৯ মে দারোগা আজিজ আমার মোবাইলে ফোন দিয়ে বলেন, আমি যেন তাকে ভুলে যাই। পরে ২০১১ সালের ১২ মে সিলেট উপমহাপরিদর্শক (সিলেট পুলিশ রেঞ্জ) বরাবরে দরখাস্ত করি। ২০১২ সালে ৯ মে আইজিপি বরাবর দরখাস্ত দেই। এ ঘটনায় ছাতক থানায় ২০১২ সালের ৮ আগস্ট অভিযোগ দায়ের করি, কিন্তু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোকদ্দমা এফআইআর না করায় ন্যায়বিচারের জন্য আদালতের স্মরণাপন্ন হই। ওই নারী ২০১২ সালের ১০ সেপ্টেম্বর আজিজুর রহমানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে আদালতে মামলা করেন। মামলার পর আজিজুর রহমানকে প্রথমে সাময়িক ও পরে স্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করা হয়। মামলার বিচারকাজ শেষে বৃহস্পতিবার রায় ঘোষণা করেন আদালতের বিচারক। রায়ের পর আসামিকে কারাগারে পাঠানো হয়। সাজাপ্রাপ্ত আজিজুল ইসলাম চৌধুরীর বাড়ি হবিগঞ্জ জেলা সদরে। তিনি ২০১২ সালে সুনামগঞ্জের ছাতক থানার এসআই হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তখনই ওই ঘটনা ঘটে।

সুনামগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ) রোকনুজ্জামান যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের এ আদেশ দেন। রায়ের সময় আসামি আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। পিপি নান্টু রায়ের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সুনামগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ) রুকনুজ্জামান যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন।

ট্যাগস:

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

সাতক্ষীরা থানায় হামলার চেষ্টা, পুলিশের লাঠিচার্জ ও ফাঁকা গুলি

মামলার তদন্তে গিয়ে ধর্ষণ, পুলিশ কর্মকর্তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

আপডেট সময়: ০১:২৩:২১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

সুনামগঞ্জের ছাতকে কর্মরত থাকতে একটি মামলার তদন্ত করতে গিয়ে এক পক্ষের নারীকে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেন এক পুলিশ কর্মকর্তা। পরে ভুক্তভোগী নারী আদালতে মামলা করলে চাকরি খোয়ান ওই পুলিশ কর্মকর্তা। বৃহস্পতিবার (৩০ মে) প্রায় ১২ বছর মামলার বিচারকাজ শেষে ওই মামলার রায় হয়েছে। রায়ে আজিজুল ইসলাম চৌধুরীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এজাহারে নির্যাতিত ওই মহিলা উল্লেখ করেন, আমার পৈতৃক জায়গা জমির বিরোধ নিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা আজিজুল ইসলাম চৌধুরী। সেই সুবাদে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিভিন্ন সময় একাধিকবার ধর্ষণ করে। পরে পুলিশ কর্মকর্তা আমার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করলে আমি অসহায় বোধ করি।

২০১১ সালের ৯ মে দারোগা আজিজ আমার মোবাইলে ফোন দিয়ে বলেন, আমি যেন তাকে ভুলে যাই। পরে ২০১১ সালের ১২ মে সিলেট উপমহাপরিদর্শক (সিলেট পুলিশ রেঞ্জ) বরাবরে দরখাস্ত করি। ২০১২ সালে ৯ মে আইজিপি বরাবর দরখাস্ত দেই। এ ঘটনায় ছাতক থানায় ২০১২ সালের ৮ আগস্ট অভিযোগ দায়ের করি, কিন্তু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোকদ্দমা এফআইআর না করায় ন্যায়বিচারের জন্য আদালতের স্মরণাপন্ন হই। ওই নারী ২০১২ সালের ১০ সেপ্টেম্বর আজিজুর রহমানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে আদালতে মামলা করেন। মামলার পর আজিজুর রহমানকে প্রথমে সাময়িক ও পরে স্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করা হয়। মামলার বিচারকাজ শেষে বৃহস্পতিবার রায় ঘোষণা করেন আদালতের বিচারক। রায়ের পর আসামিকে কারাগারে পাঠানো হয়। সাজাপ্রাপ্ত আজিজুল ইসলাম চৌধুরীর বাড়ি হবিগঞ্জ জেলা সদরে। তিনি ২০১২ সালে সুনামগঞ্জের ছাতক থানার এসআই হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তখনই ওই ঘটনা ঘটে।

সুনামগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ) রোকনুজ্জামান যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের এ আদেশ দেন। রায়ের সময় আসামি আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। পিপি নান্টু রায়ের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সুনামগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ) রুকনুজ্জামান যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন।