আজ শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন দিন
জাতীয়, আঞ্চলিক, স্থানীয় পত্রিকাসহ অনলাইন পোর্টালে যে কোন ধরনের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন। মেসার্স রুকাইয়া এড ফার্ম -01711 211241

বাংলাদেশে ইন্টারনেট সংযোগ বিস্তারে ইউএসটিডিএর সমীক্ষা অনুদান

  • রিপোর্টার
  • আপডেট সময়: ০৮:৩০:১৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪
  • ৩২ বার পড়া হয়েছে

যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য ও উন্নয়ন সংস্থা (ট্রেড অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি) বাংলাদেশি টেলিযোগাযোগ কোম্পানি সিডিনেট কমিউনিকেশনস লিমিটেডকে সম্ভাব্যতা সমীক্ষায় অনুদান প্রদান করেছে। বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সাবমেরিন ক্যাবল (বাঘা-১) উন্নয়নের মাধ্যমে সিডিনেট সারা বাংলাদেশে নির্ভরযোগ্য ইন্টারনেট সংযোগ সম্প্রসারণ করতে চায়। ইউএসটিডিএ-এর ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, সাবসি ক্যাবলটি শহর ও গ্রামীণ উভয় অঞ্চলে ক্ষমতা বৃদ্ধি করবে এবং ইন্টারনেটের মান উন্নত করবে। গবেষণাটি পরিচালনার জন্য সিডিনেট ফ্লোরিডাভিত্তিক এপিটেলিকম এলএলসিকে বেছে নিয়েছে । ইউএসটিডিএ এবং সিডিনেট ষষ্ঠ ইন্দো-প্যাসিফিক বিজনেস ফোরামে তাদের অনুদান চুক্তি স্বাক্ষর করে। সেখানে ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট ফার্দিনান্দ রোমুয়ালদেজ মার্কোস জুনিয়র মূল বক্তব্য প্রদান করেন।

ইউএসটিডিএর পরিচালক এনোহ টি ইবং বলেন, ইন্দো-প্যাসিফিক জুড়ে, ইউএসটিডিএ সিডিনেটের মতো অংশীদারদের সাথে সাবসি কেবল প্রকল্পগুলির একটি পোর্টফোলিও তৈরি করছে। এই অংশীদাররা বিশ্বস্ত সাবসি ফাইবার অপটিক কেবল সিস্টেমের মাধ্যমে তাদের দেশের ব্রডব্যান্ড ক্ষমতা প্রসারিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।
তিনি বলেন, আমাদের সংস্থা একটি অংশীদারিত্ব-ভিত্তিক ইকোসিস্টেম তৈরি করতে সহায়তা করে। যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি খাত, মার্কিন সরকারি সংস্থা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং সমমনা ইন্দো-প্যাসিফিক অংশীদারদের সম্পদ এবং সক্ষমতা অর্জন করে বাঘা -১ এর মতো প্রকল্পগুলির সাফল্যের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সাবসি কেবলগুলি বিশ্বব্যাপী যোগাযোগে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বাঘা-১ বাস্তবায়িত হলে ক্যাবলটি বাংলাদেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের জন্য সহজলভ্য ব্যান্ডউইথ বৃদ্ধি করবে। এটা নিরাপদ উচ্চগতির ইন্টারনেট সংযোগ সম্প্রসারণে সহায়তা করবে এবং দেশের গুরুত্বপূর্ণ ডিজিটাল অবকাঠামোর স্থিতিস্থাপকতা বাড়াতে সহায়তা করবে।

ইউএসটিডিএর গবেষণা সিডিনেটকে বাংলাদেশে একটি বিশ্বস্ত সাবসি ক্যাবল সিস্টেম স্থাপনের জন্য সবচেয়ে কৌশলগত পথ চিহ্নিত করতে বিকল্পগুলি মূল্যায়ন করতে সহায়তা করবে। সিডিনেট এর পরিচালক ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত বলেন, বাঘা-১ বিশ্বে বাংলাদেশের নির্ভরযোগ্য ও বিশ্বস্ত সংযোগ বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে এবং ফাইভজি সেবা, আন্তর্জাতিক ডাটা সেন্টার এবং আন্তর্জাতিক হাইপারস্কেলারদের জন্য উদীয়মান ডিজিটাল সেবার ব্যাপক সুযোগ উন্মুক্ত করবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের আরও সংযুক্ত ও সমৃদ্ধ ভবিষ্যতের দিকে এই যাত্রার অংশ হতে পেরে আমরা গর্বিত।

ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেন, ‘ইউএসটিডিএ’র সম্ভাব্যতা সমীক্ষা বাংলাদেশের মানুষের জন্য উন্নত ইন্টারনেটে প্রবেশযোগ্যতা এবং গুণগত মানের ভিত্তি স্থাপন করবে। আরও সংযুক্ত বাংলাদেশ গড়তে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সহায়তা করতে পেরে আমরা গর্বিত।’ ইউএসটিডিএর গবেষণা বাইডেন-হ্যারিস প্রশাসনের লক্ষ্য যেমন বৈশ্বিক অবকাঠামো ও বিনিয়োগের জন্য অংশীদারিত্ব, ডিজিটাল সংযোগ এবং সাইবার সিকিউরিটি অংশীদারিত্ব এবং সমৃদ্ধির জন্য ইন্দো-প্যাসিফিক অর্থনৈতিক ফ্রেমওয়ার্কের মতো লক্ষ্যগুলিকে এগিয়ে নেওয়াকে অগ্রাধিকার দেয়।

ট্যাগস:

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

বাংলাদেশে ইন্টারনেট সংযোগ বিস্তারে ইউএসটিডিএর সমীক্ষা অনুদান

আপডেট সময়: ০৮:৩০:১৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য ও উন্নয়ন সংস্থা (ট্রেড অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি) বাংলাদেশি টেলিযোগাযোগ কোম্পানি সিডিনেট কমিউনিকেশনস লিমিটেডকে সম্ভাব্যতা সমীক্ষায় অনুদান প্রদান করেছে। বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সাবমেরিন ক্যাবল (বাঘা-১) উন্নয়নের মাধ্যমে সিডিনেট সারা বাংলাদেশে নির্ভরযোগ্য ইন্টারনেট সংযোগ সম্প্রসারণ করতে চায়। ইউএসটিডিএ-এর ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, সাবসি ক্যাবলটি শহর ও গ্রামীণ উভয় অঞ্চলে ক্ষমতা বৃদ্ধি করবে এবং ইন্টারনেটের মান উন্নত করবে। গবেষণাটি পরিচালনার জন্য সিডিনেট ফ্লোরিডাভিত্তিক এপিটেলিকম এলএলসিকে বেছে নিয়েছে । ইউএসটিডিএ এবং সিডিনেট ষষ্ঠ ইন্দো-প্যাসিফিক বিজনেস ফোরামে তাদের অনুদান চুক্তি স্বাক্ষর করে। সেখানে ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট ফার্দিনান্দ রোমুয়ালদেজ মার্কোস জুনিয়র মূল বক্তব্য প্রদান করেন।

ইউএসটিডিএর পরিচালক এনোহ টি ইবং বলেন, ইন্দো-প্যাসিফিক জুড়ে, ইউএসটিডিএ সিডিনেটের মতো অংশীদারদের সাথে সাবসি কেবল প্রকল্পগুলির একটি পোর্টফোলিও তৈরি করছে। এই অংশীদাররা বিশ্বস্ত সাবসি ফাইবার অপটিক কেবল সিস্টেমের মাধ্যমে তাদের দেশের ব্রডব্যান্ড ক্ষমতা প্রসারিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।
তিনি বলেন, আমাদের সংস্থা একটি অংশীদারিত্ব-ভিত্তিক ইকোসিস্টেম তৈরি করতে সহায়তা করে। যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি খাত, মার্কিন সরকারি সংস্থা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং সমমনা ইন্দো-প্যাসিফিক অংশীদারদের সম্পদ এবং সক্ষমতা অর্জন করে বাঘা -১ এর মতো প্রকল্পগুলির সাফল্যের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সাবসি কেবলগুলি বিশ্বব্যাপী যোগাযোগে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বাঘা-১ বাস্তবায়িত হলে ক্যাবলটি বাংলাদেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের জন্য সহজলভ্য ব্যান্ডউইথ বৃদ্ধি করবে। এটা নিরাপদ উচ্চগতির ইন্টারনেট সংযোগ সম্প্রসারণে সহায়তা করবে এবং দেশের গুরুত্বপূর্ণ ডিজিটাল অবকাঠামোর স্থিতিস্থাপকতা বাড়াতে সহায়তা করবে।

ইউএসটিডিএর গবেষণা সিডিনেটকে বাংলাদেশে একটি বিশ্বস্ত সাবসি ক্যাবল সিস্টেম স্থাপনের জন্য সবচেয়ে কৌশলগত পথ চিহ্নিত করতে বিকল্পগুলি মূল্যায়ন করতে সহায়তা করবে। সিডিনেট এর পরিচালক ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত বলেন, বাঘা-১ বিশ্বে বাংলাদেশের নির্ভরযোগ্য ও বিশ্বস্ত সংযোগ বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে এবং ফাইভজি সেবা, আন্তর্জাতিক ডাটা সেন্টার এবং আন্তর্জাতিক হাইপারস্কেলারদের জন্য উদীয়মান ডিজিটাল সেবার ব্যাপক সুযোগ উন্মুক্ত করবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের আরও সংযুক্ত ও সমৃদ্ধ ভবিষ্যতের দিকে এই যাত্রার অংশ হতে পেরে আমরা গর্বিত।

ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেন, ‘ইউএসটিডিএ’র সম্ভাব্যতা সমীক্ষা বাংলাদেশের মানুষের জন্য উন্নত ইন্টারনেটে প্রবেশযোগ্যতা এবং গুণগত মানের ভিত্তি স্থাপন করবে। আরও সংযুক্ত বাংলাদেশ গড়তে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সহায়তা করতে পেরে আমরা গর্বিত।’ ইউএসটিডিএর গবেষণা বাইডেন-হ্যারিস প্রশাসনের লক্ষ্য যেমন বৈশ্বিক অবকাঠামো ও বিনিয়োগের জন্য অংশীদারিত্ব, ডিজিটাল সংযোগ এবং সাইবার সিকিউরিটি অংশীদারিত্ব এবং সমৃদ্ধির জন্য ইন্দো-প্যাসিফিক অর্থনৈতিক ফ্রেমওয়ার্কের মতো লক্ষ্যগুলিকে এগিয়ে নেওয়াকে অগ্রাধিকার দেয়।